Text size A A A
Color C C C C
পাতা

প্রকল্প

গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পসমূহ


০১।  সমবায় সমিতি পরিচর্যা পরিদর্শন ও অডিট কার্যক্রম

 

অত্র ভোলা সদর উপজেলায় উপজেলা ইউ,সি,সি,এ,লি: সহ মোট ১০টি কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি এবং ৫৫০ টি প্রাথমিক সমবায় সমিতি আছে। এ সমবায় সমিতি সমূহের নিয়মিত পরিচর্যা, পরিদর্শন ও  বার্ষিক অডিট কার্য়ক্রম সহ অডিট ফি আদায় কার্যক্রম পরিচালনা অব্যাহত আছে।

 

 

০২। সরকারী রাজস্ব আদায় কার্যক্রম

        সমবায় সমিতিসমূহ  অডিটের প্রেক্ষিতে সমবায় আইন/২০০১ ও সমবায় বিধিমালা/২০০৪ মোতাবেক ধার্যকৃত অডিট ফি এবং সমবায় উন্নয়ন তহবিল যথাযথভাবে আদায় কার্যক্রম অব্যাহত আছে। এরই ধারাবাহিকতায় চলতি ২০১০-২০১১ অর্থ বছরে ধার্যকৃত অডিট ফি ১,২৩,২৯০/- টাকা এবং সমবায় উন্নয়ন তহবিল ৩৪,০২২/- টাকার মধ্যে ইতিমধ্যেই অডিট ফি ৮৬,৯৯১/- টাকা এবং সমবায় উন্নয়ন তহবিল ২৬,৩৬১/- টাকা আদায় করে সরকারী কোষাগারে জমা প্রদান করা হয়েছে।

 

০৩। আশ্রয়ন ও আশ্রয়ন ফেইজ-২ প্রকল্প সংক্রামত্ম

আশ্রয়ন প্রকল্প গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর দপ্তর কর্তৃক পরিচালিত একটি অগ্রধিকার ভিত্তিক প্রকল্প। বাংদেশের ভূমিহীন, দরিদ্র, অসহায় ও ছিন্নমূল মানুষদের পূনর্বাসনের লক্ষ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক আশ্রয়ন প্রকল্প প্রতিষ্ঠা করা হয়। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমবায় বিভাগ সমাজের দরিদ্র অসহায় ভূমিহীন, ছিন্নমূল জনগনকে আশ্রয়ন প্রকল্পে সংগঠিত করে সমবায় সমিতি নিবন্ধন ও বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ জনশক্তিতে রূপামত্মরিত করে আশ্রয়ন নীতমালা মোতাবেক ঋণ প্রদান করে পূনর্বাসিত সদস্যদেরকে আর্থ-সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠা করার জন্য নিরলসভাবে কাজ করছে। ভোলা সদর উপজেলায় রামদেবপুর-১,  রামদেবপুর-২ আশ্রয়ন প্রকল্প এবং চরগাজী-৩ ও চরগাজী-৪ আশ্রয়ন ফেইজ-২ প্রকল্পে বরাদ্দকৃত সদস্যদের প্রশিক্ষণ শেষে ঋণ প্রদান করা হয়েছে। &ঋণ কার্যক্রম সংক্রামত্ম তথ্যাবলী নিম্নরূপ-

 

 

ক্র:নং

প্রকল্পের নাম

আবাস থেকে প্রাপ্ত ঋণ

এ পর্যমত্ম দাদন

এ পর্যমত্ম আদায়

মাঠে পাওনা

খেলাপী ঋণ

মমত্মব্য

০১

রামদেবপুর-১ আশ্রয়ন প্রকল্প

১২,০০,০০০/-

১৭,৫০,০০০/-

৮,৪৫,০৮৯/-

১০,৪৪,৯১১/-

১০,৪৪,৯১১/-

 

০২

রামদেবপুর-২ আশ্রয়ন প্রকল্প

১২,০০,০০০/-

২৭,৬৬,০০০/-

১৭,৮৩,১৮৮/-

১২,০৪,০৯২/-

১২,০৪,০৯২/-

 

০৩

চরগাজী-৩ আশ্রয়ন ফেইজ-২ প্রকল্প

৫,৬০,০০০/-

৩,৮৫,০০০/-

৩৮,০৬০/-

৩,৭৭,৭৪০/-

 মেয়াদ উত্তীর্ণ নয়

 

০৪

চরগাজী-৪ আশ্রয়ন ফেইজ-২ প্রকল্প

৮,৪০,০০০/-

৩,৮৫,০০০/-

৪৬,৯২০/-

৩,৬৮,৮৮০/-

 মেয়াদ উত্তীর্ণ নয়

 

 

 

০৪। সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন প্রকল্প

বাংলাদেশের স্বাধীনতা পরবর্তী দু’দশকে গ্রাম,ইউনিয়ন ও উপজেলা এ তিন পর্যায়ে বিভিন্ন কর্মসূচী প্রণয়ন, সংগঠন সৃষ্টি ও তার ব্যবহারের বহু পরীক্ষা নিরীক্ষা ও পরিবর্তন পরিলক্ষিত হয়েছে। বলা বাহুল্য গ্রামীণ সংগঠন সৃষ্টির ক্ষেত্রে এ জাতীয় পরীক্ষা নিরীক্ষা ও পরিবর্তনের ধারা অদ্যাবধি অব্যাহত রয়েছে। ইতিমধ্যে সরকারের জাতি গঠনমূলক বিভাগসমূহের পাশাপাশি বেশ কিছু বিদেশী সাহায্য-নির্ভর-দেশীয় বেসরকারী সংস্থা এবং বিদেশী সংস্থাসমূহ পল্লী এলাকায় বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মসূচী বাসত্মবায়ন করছে। সরকারী  ও বেসরকারী সংস্থার সম্প্রসারন কর্মীগন এক ধরনের সমন্বয়হীন প্রতিযোগীতার মাধ্যমে সংগঠন, দল ও সুফলভোগী সৃষ্টি করছে। ফলে বর্তমানে গ্রামবাসীরা উৎপাদন ও আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে তাদের অবস্থার উন্নতির জন্য নিজস্ব সম্পদ আহরন ও ক্ষমতার সদ্ব্যবহার না করে দিন দিন সরকারী ও ব্যসরকারী সাহায্যের মুখাপেক্ষী হচ্ছে। তাছাড়া ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র  গ্রাম সংগঠন বা দল সমূহ তাদের সকল শক্তি ও সামর্থকে একত্রিত করে বৃহত্তর কোন উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারছে না। অন্যদিকে পল্লী উন্নয়ন ও সম্প্রসারন খাতে সরকারী ব্যয় দিন দিন বাড়ছে। সরকারকে বিভিন্ন সময় ঋণ মওকুফের ঘোষনা দিতে হচ্ছে এবং বহুবিধ উন্নয়ন কর্মসূচীর দাবী  মেটাতে হচ্ছে। তদুপরি হাজার হাজার সম্প্রসারন কর্মীর ব্যবস্থাপনা নিয়েও সরকারকে প্রতিনিয়ত হিমসিম খেতে হচ্ছে।

 

           

 

উল্লেখিত অবস্থার প্রেক্ষিতে বার্ড ভূমিহীন, শ্রমিক, বিত্তহীন ও দুস্থ লোকদের উন্নয়ন কর্মকান্ডে সম্পৃক্তির কথা স্মরন রেখে এবং সেই সাথে গ্রামে সকল শ্রেণী ও পেশার লোকের সমন্বয়ে একটি শক্তিশালী সাংগঠনিক কাঠামো সৃস্টির প্রয়োজনীয়তা অনুসরন করে পল্লী উন্নয়নে কার্যকর পদ্ধতি উদ্ভাবনে গবেষনা ও পরীক্ষা নিরীক্ষা চালায়। যে কর্মসূচীর মাধ্যমে সুশৃঙ্খল পল্লী উন্নয়ন অবকাঠামো তৈরীর পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে তারই নাম সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন কর্মসূচী (সিভিডিপি)। যা বর্তমানে পল্লী উন্নয়নের সফল মডেল হিসেবে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের আওতায় ৪ টি সংস্থা যথাক্রমে বার্ড, কুমিল্লা, আর,ডি,এ, বগুরা,  বি,আর,ডি,বি, ও সমবায় অধিদপ্তর, ঢাকার মাধ্যমে জুলাই,২০০৫ হতে জুন,২০০৮ পর্যমত্ম ১ম পর্যায়ে ২ ৪৬৫.৩০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে বাসত্মবায়িত হয়েছে এবং ২য় পর্যায়ে ১০৫৯৩.৩০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে বাসত্মবায়িত হচ্ছে।

 

এরই ধারাবাহিকতায় সমবায় অধিদপ্তর, ঢাকা ১ম পর্যায়ে ৭ টি এবং ২য় পর্যায়ে ১০ টি মোট ১৭ টি উপজেলায় সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন কর্মসূচী (সিভিডিপি) এর কার্যক্রম বাসত্মবায়ন করছে। ভোলা সদর উপজেলার গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর দারিদ্র বিমোচন, আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন সহ সার্বিক উন্নয়নে অক্টোবর/২০১০ হইতে সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন কর্মসূচী (সিভিডিপি) এর কার্যক্রম বাসত্মবায়িত হচ্ছে। এই উপজেলায় বাসত্মবায়িত সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন কর্মসূচীর বর্তমান বাসত্মব তথ্য চিত্র নিম্নরূপ-

 

 

ক্র

উপজেলা

নিবন্ধিত সমিতি

সমিতি অমত্মর্ভূক্ত পরিবার

সদস্য সংখ্যা

সঞ্চয় আমানত

শেয়ার মূলধন

বিবিধ

সর্বমোট

মূলধন

বিনিয়োগ

উপকার ভোগী

ব্যক্তি

আত্ম কর্ম

সংস্থান

০১

ভোলা সদর

৬০

২,২৩৯

৩,০০৫

১৮,৯৮,৩২৫

১,৭৭,৪০০

৫১,৭৫০

২১,২৭,৪৭৫

৮,০৮,৫০০

১৪৮

৬২